আল-আকসার ওপর যে কোন আগ্রাসনের কঠোর জবাবের হুশিয়ারি হিজবুল্লাহর

লেবাননের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহর মহাসচিব সাইয়্যেদ হাসান নাসরুল্লাহ দখলদার ইসরায়েলের বিরুদ্ধে যুদ্ধে প্রতিরোধ আন্দোলনের বিজয়ে ফিলিস্তিনি জনগণকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

তিনি ইসরায়েলি দখলদারিত্ব থেকে দক্ষিণ লেবানন মুক্ত করার ২১তম বার্ষিকী উপলক্ষে মঙ্গলবার রাতে টেলিভিশনে দেওয়া এক ভাষণে এ অভিনন্দন জানান।

সাম্প্রতিক গাজা যুদ্ধে ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ যোদ্ধাদের বিজয়ের প্রতি ইঙ্গিত করে সাইয়্যেদ নাসরুল্লাহ বলেন, প্রতিরোধ সংগঠনগুলোর সামরিক শাখাগুলো চমৎকারভাবে তাদের দায়িত্ব পালন করেছে।

হিজবুল্লাহ মহাসচিব বলেন, সাম্প্রতিক গাজা যুদ্ধে যা ঘটেছে তা ছিল ইসরায়েলি শত্রুদের বিরুদ্ধে যুদ্ধের ইতিহাসে সম্পূর্ণ ব্যতিক্রমধর্মী।

তিনি বলেন, এ যুদ্ধে যা ঘটেছে তা থেকে ইসরায়েলকে এই শিক্ষা নিতে হবে যে, বায়তুল মুকাদ্দাস ও মসজিদুল আকসার বিরুদ্ধে যেকোনও ধরনের আগ্রাসনের কঠোর জবাব দেবে ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ সংগঠনগুলো। তিনি বলেন, প্রতিরোধ যোদ্ধারা এবার গাজাবাসীকে রক্ষা করতে নয় বরং আল-কুদসকে রক্ষা করতে যুদ্ধে জড়িয়েছেন।

সাইয়্যেদ নাসরুল্লাহর নেতৃত্বাধীন হিজবুল্লাহর প্রতিরোধ সংগ্রামের মুখে ইসরায়েল ২০০০ সালের মে মাসে দক্ষিণ লেবানন থেকে পাততাড়ি গুটাতে বাধ্য হয়। ইহুদিবাদী শত্রুদের বিরুদ্ধে ওই বিশাল বিজয়ে ইরান ও সিরিয়ার পৃষ্ঠপোষকতার কথা স্মরণ করে সাইয়্যেদ হাসান নাসরুল্লাহ বলেন, দক্ষিণ লেবানন মুক্ত করার পেছনে ইরানের কুদস ফোর্সের সাবেক কমান্ডার লে. জেনারেল কাসেম সোলাইমানির অনন্য অবদান ছিল।

Leave a Comment