মেডিকেলে চান্স পেয়েছেন কৃষক বাবার সন্তান সাকিব

মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান সাকিব রানা। এবারের মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষায় চান্স পেয়েছে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজে।

পিতা মোঃ আমজাদ হোসেন একজন কৃষক। নিজের কিছু জমি চাষাবাদ করেই চালান সংসারের খরচ। মা শেফালি বেগম একজন গৃহিণী। ৪ সদস্যের পরিবারে ২ ভাই-বোনর মধ্যে সাকিব সবার ছোট।

সিরাজগঞ্জ জেলার তাড়াশ উপজেলার মাধাইনগর ইউনিয়নের কাঞ্চনেশ্বর গ্রামে সাকিবের জন্ম।
অদম্য মেধাবী ছাত্র সাকিব ছোট বেলা থেকেই পড়াশোনায় বেশ মনোযোগী ছিল। তখন থেকেই যেন আকাশ ছোঁয়া লক্ষ ছিল তার। যার সাক্ষী প্রতিটি পরীক্ষায় ফলাফল।

২০১৮ সালে মাধাইনগর দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়ে ভর্তি হন আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজে। সেখান থেকে এইচএসসি পরীক্ষা দিয়ে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পায়।

তার একটাই লক্ষ্য ছিল সফলতা দিয়ে কৃষক পিতার মুখে হাসি ফোটানো। এসএসসি ও এইচএসসিতে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়ে মেডিকেলে ভর্তির জন্য যুদ্ধ শুরু করেন সাকিব। ধরা দেয় সাফল্য। ভর্তি পরীক্ষায় ১০০ নম্বরের মধ্য পান ৭২.২৫ নম্বর। তার মেরিট স্কোর দাঁড়ায় ২৭২.২৫। স্থান হয় মেধা তালিকার ১৮৯১ নম্বরে। চান্স পেয়ে এখন চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্নে বিভোর সে।

সাকিব জানান, এই সাফল্যের জন্য আল্লাহর দরবারে লাখ লাখ শুকরিয়া। তার অনুগ্রহ আর মা-বাবার দোয়ায় আমার এই সাফল্য। আমি সবসময় পিতা-মাতা ও শিক্ষকদের অনুপ্রেরণাকে প্রাধান্য দিয়েছি।

সে বলেন, আমি কৃষক বাবার সন্তান। দারিদ্রতা কি সেটা আমি বুঝি। কাজেই চিকিৎসক হয়ে আমি সমাজের হতদরিদ্র মানুষের সেবায় নিজেকে আত্মনিয়োগ করতে চাই। আমার এত দূর আসার পেছেনে আমার শিক্ষক,পরিবার,বড় ভাই, বন্ধু-বান্ধবসহ অনেকের সহযোগীতা ও অনুপ্রেরণা রয়েছে। সকলের প্রতি আমি চির কৃতজ্ঞ। সবার কাছে দোয়া চাই। আমি যেন সারা জীবন মানুষের পাশে থেকে তাদের সেবা করতে পারি।

1 thought on “মেডিকেলে চান্স পেয়েছেন কৃষক বাবার সন্তান সাকিব”

  1. দোয়া করি এগিয়ে যাও বন্ধু । দোয়া, ভালোবাসা ও শুভ কামনা।

    Reply

Leave a Comment